নবান্ন স্কলারশিপ কি ভাবে পাওয়া যাবে??

নবান্ন স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য কিছু দরকারি কথা

নবান্ন স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য তোমাকে কিন্তু অবশ্যই পড়াশোনার সাথে যুক্ত থাকতে হবে। উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর কলেজ ভরতি না হলে স্কলারশিপ পাওয়া যাবে না। কারন স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য নতুন কলেজ না নতুন স্কুলের ভরতি রিসিপ্ট লাগবে। যারা মাধ্যমিক পাস করেছে তাদের জন্য একাদশ শ্রেণীর ভরতি রিসিপ্ট এবং যারা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেছে তাদের জন্য কলেজ ভরতি রিসিপ্ট লাগবে। প্রত্যেক বছর নবান্ন থেকে এই স্কলারশিপ পাওয়া যায়। এই স্কলারশিপ শুধু মাত্র সেই সব ছাত্রছাত্রীরা পাবে যারা কারেন্ট ইয়ারে পাস করেছে, মানে হল যারা এই বছর মাধ্যমিক অথবা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছে এবং এই বছরই তারা পাস করেছে। মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পরে যদি সেই বছরে স্কলারশিপের জন্য আবেদন না করা হয় তাহলে কিন্তু স্কলারশিপ পাওয়া যাবে না। আপ্লিকেশন ফর্মের জন্য নিচে দেখুন।


nabanna scholarship, nabanna scholarship, nabanna scholarship 2018, scholarship, how to apply nabanna scholarship, nabanna scholarship last date, nabanna scholarship status check, nabanna scholarship 2018-19, nabanna scholarship application form, west bengal scholarship, nabanna scholarship application form 2018, chief minister scholarship, wb scholarship 2018, nobanno scholarship, how to apply for nabanna scholarship, wb scholarship, kothakoli, kotha koli
Nabanna Scholarship


স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য কি কি দরকার...

ছাত্রছাত্রী কে ৬৫% নম্বর পেয়ে মাধ্যমিক অথবা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করতে হবে। যারা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেছে ৬৫% নম্বর পেয়ে কিন্তু অনার্স নেয়নি কলেজে, তারা কিন্তু এই স্কলারশিপ পাবে না। স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য অনার্স থাকতে হবে। পরিবারের বছরে মোট আয় ৬০,০০০ টাকার কম হতে হবে। অন্য কোন সরকারি স্কলারশিপ না পেয়ে থাকলে তবেই এই স্কলারশিপ পাওয়া যাবে।

কত টাকা পাওয়া যাবে ?

৬৫%  নম্বর বা তার বেশি নম্বর নিয়ে মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করলে নবান্ন থেকে ১০,০০০ টাকা পাওয়া যাবে। যারা  ৬৫%  নম্বর বা তার বেশি নম্বর নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে ইঞ্জিনিয়ারিং বা মেডিকেল নিয়ে পড়াশোনা করবে তারা কিন্তু ২০,০০০ টাকা পাবে।
এই স্কলারশিপ আবেদনের কোন সময় সীমা নেই তবে যে বছরে ছাত্রছাত্রী পাস করবে সেই বছরেই স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে হবে। শুধু মাত্র অফলাইনে আবেদন করা যাবে। স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য ছাত্রছাত্রী কে অবশ্যই এই রাজ্যের বাসিন্দা হতে হবে।

কি ভাবে আবেদন করতে হবে?

নিচে দেওয়া আপ্লিকেশন ফর্মটি ডাউনলোড করে ফিলাপ করতে হবে। তোমার পড়াশোনা ভালো কিন্তু পরিবারের আয় কম এই উল্লেখ করে নিজের হাতে সুন্দর করে মুখ্যমন্ত্রী কে একটা চিঠি লিখতে হবে এবং এই চিঠি M.L.A. দিয়ে সই করাতে হবে। M.L.A. Recommendation একটা ফর্ম রয়েছে ওখানেও  M.L.A. দিয়ে সই করাতে হবে।  Self Decleration নামে একটা ফর্ম রয়েছে ওখানে যে স্কুলে বা কলেজে ভরতি হয়েছো, হেড মাস্টার অথবা প্রিন্সিপাল কে দিয়ে সই করাতে হবে।
আপ্লিকেশন জমা করার সময় Attested করা Marksheet, Admit, Registration এবং Aadhar Card  নিয়ে যেতে হবে। ফটোকপি সাথে অরিজিনাল। স্কুল অথবা কলেজ ভর্তির রিসিপ্ট নিয়ে যেতে হবে।  Original Income Certificate  নিয়ে যেতে হবে। সমস্ত ফর্ম গুলো ঠিক ঠাক ভাবে ফিলাপ করে এবং ব্যাংকের পাস বই এর  Index Page এর জেরক্স নিয়ে যেতে হবে। নবান্ন গিয়ে সবকিছু জমা করতে হবে।
যদি কোন প্রশ্ন থাকে নিচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানিও আমরা অবশ্যই সাহায্য করবো।

Nabanna Scholarship Application Form
Fresh Nabanna Scholarship Application Form 
How To Make BDO Income Certificate?

Post a Comment

3 Comments

  1. Nabanna scholarship ar documents gulo kar kache attested korate hobe??

    ReplyDelete